০৩:১২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তরুণ শিল্পী জয় চন্দ্র শীলের শিল্পী হয়ে উঠার গল্প

আমি জয় চন্দ্র শীল । আমার বাড়ি খিরাটী, কাপাসিয়া, গাজীপুর, আমার জন্ম ১৯৯৯ সালের ৩ মার্চ ।। আমি প্রথমত গান শিখেছি আমাদের হরি মন্দর থেকে। সেখানে প্রতি সপ্তাহে বৃহস্পতিবার হরি সেবা হত। তার পর আমি ২০০৪ সালে উদীচী তে ভর্তি হই।। সেখানে বেশি দিন গান শিখতে পারি নি। এক পর্যায়ে আমার গান শিখা বন্ধ হয়ে যায় । তার পর হরিসেবায় দুহার গাইতে শুরুকরলাম ।। এভাবে বেশ ৫-৬ বছর মন্দিরে গান করলাম। তার পর আবার ২০১৬ সালে আমি শিল্পকলা একাডেমিতে ভর্তি হই। সেখানে ১ম বর্ষে ১ম স্থান অর্জন করি ।। আবার কিছু দিন যেতে না যেতে আমার আবার গানের স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়।। একটি সময় আমার গানের প্রতি অনিহা চলে আসে । আমি আর গান করব না । এভাবে অনেক দিন কেটে গেলো। ২০২৩ সালে আমি আবার গান গাইতে শুরু করলাম নিজে নিজে। আমি একটি ফেসবুক পেইজ খুলি সেখানে প্রায় প্রতিদিনই গান গেয়ে ছাড়তে শুরু করলাম। একদিন ফেইসবুকে গানে গানে সেরার সার্কুলারটি দেখতে পেলাম সেখানে আবেদন করি তার পর আমি সেখানে অডিশন দেই সেখানে সিলেক্টেড হই। এখানে অডিশন করতে করতে মূল মঞ্চের লেভেল ৩ তে পৌছে যাই। আর এখনো অডিশন করছি আমার জন্য সবাই আর্শীবাদ /দোয়া করবেন আমি যেন এখানে ভালো কিছু করতে পাড়ি।। 

 সাধারন মাল্টিমিডিয়া বাংলাদেশের সবচে বড় রিয়েলিটি শো গানে গানে সেরা । এই রিয়েলিটি শো আমাদের কে এমন একটি সুযোগ করে দেওয়ার জন্য আমাদের থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।আর আমাদের এই সাধারণ মাল্টিমিডিয়া চিরস্থায়ী কামনা করছি সবাইকে আবারও ধন্যবাদ

ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের যৌথ বিশেষ মহড়া অনুষ্ঠিত

তরুণ শিল্পী জয় চন্দ্র শীলের শিল্পী হয়ে উঠার গল্প

Update Time : ০৩:৪৯:২২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মে ২০২৪

আমি জয় চন্দ্র শীল । আমার বাড়ি খিরাটী, কাপাসিয়া, গাজীপুর, আমার জন্ম ১৯৯৯ সালের ৩ মার্চ ।। আমি প্রথমত গান শিখেছি আমাদের হরি মন্দর থেকে। সেখানে প্রতি সপ্তাহে বৃহস্পতিবার হরি সেবা হত। তার পর আমি ২০০৪ সালে উদীচী তে ভর্তি হই।। সেখানে বেশি দিন গান শিখতে পারি নি। এক পর্যায়ে আমার গান শিখা বন্ধ হয়ে যায় । তার পর হরিসেবায় দুহার গাইতে শুরুকরলাম ।। এভাবে বেশ ৫-৬ বছর মন্দিরে গান করলাম। তার পর আবার ২০১৬ সালে আমি শিল্পকলা একাডেমিতে ভর্তি হই। সেখানে ১ম বর্ষে ১ম স্থান অর্জন করি ।। আবার কিছু দিন যেতে না যেতে আমার আবার গানের স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়।। একটি সময় আমার গানের প্রতি অনিহা চলে আসে । আমি আর গান করব না । এভাবে অনেক দিন কেটে গেলো। ২০২৩ সালে আমি আবার গান গাইতে শুরু করলাম নিজে নিজে। আমি একটি ফেসবুক পেইজ খুলি সেখানে প্রায় প্রতিদিনই গান গেয়ে ছাড়তে শুরু করলাম। একদিন ফেইসবুকে গানে গানে সেরার সার্কুলারটি দেখতে পেলাম সেখানে আবেদন করি তার পর আমি সেখানে অডিশন দেই সেখানে সিলেক্টেড হই। এখানে অডিশন করতে করতে মূল মঞ্চের লেভেল ৩ তে পৌছে যাই। আর এখনো অডিশন করছি আমার জন্য সবাই আর্শীবাদ /দোয়া করবেন আমি যেন এখানে ভালো কিছু করতে পাড়ি।। 

 সাধারন মাল্টিমিডিয়া বাংলাদেশের সবচে বড় রিয়েলিটি শো গানে গানে সেরা । এই রিয়েলিটি শো আমাদের কে এমন একটি সুযোগ করে দেওয়ার জন্য আমাদের থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।আর আমাদের এই সাধারণ মাল্টিমিডিয়া চিরস্থায়ী কামনা করছি সবাইকে আবারও ধন্যবাদ