১২:০৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আজিজুল ইসলামের পাশে ওসি মাহবুবুর রহমান কাজল,,,,,

  • Update Time : ০৫:৪৭:৪১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০২০
  • ৪৬ Time View

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আজিজুল ইসলামের পাশে ওসি মাহবুবুর রহমান কাজল,,,,,,

আশরাফুজ্জামান রনিঃ গরীব অসহায় মানুষের কাছে এযেনো এক নিবেদিত প্রাণ: ওসি মাহবুবুর রহমান কাজল মন্তব্য করে বলেছেন এলাকাবাসী সেচ্ছায় ভিক্ষাবৃত্তি পেশা থেকে ফিরে এসে বাদাম ভাজা ও সিদ্ধ ডিম বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করা চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার হিজলগাড়ী গ্রামের দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আজিজুল ইসলামের রফফে( আকালে) ব্যবসা আরো প্রসারিত করার জন্য ব্যবসা করার উপকরণ ও আর্থিক সহযোগিতা করলেন দর্শনা থানার মানবিক ওসি মাহাব্বুর রহমান কাজল।

গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় বেগমপুরের তরুন সমাজসেবক শামীম হোসেন মিজির মাধ্যমে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আজিজুলকে দর্শনা থানায় ডেকে নিয়ে তার সাক্ষাত করেন দর্শনা থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মাহাব্বুর রহমান কাজল।

এসময় আজিজুল রহমানের ব্যবসা আরো প্রসারিত করার জন্য নিজ উদ্যোগে বাদাম, একটি বাদাম ভাজা কড়াই সহ প্রয়োজনীয় উপকরন ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন তিনি।

হিজলগাড়ী গ্রামের ফার্মপাড়ার আজিজুল ইসলাম পেশা একজন ভ্যান চালক হলেও বেশ কয়েক বছর আগে চিকিৎসার অভাবে দৃষ্টি শক্তি হারিয়ে ফেলেন। তারপর থেকেই তিনি ভিক্ষাবৃত্তি পেশা জড়িয়ে পড়েন।

গত মাসে হিজলগাড়ী প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক আরিফ হাসান তার নিজ ফেসবুক একাউন্টে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী আজিজুল ইসলাম সেচ্ছায় ভিক্ষা পেশা ছাড়তে চাই ক্যাপশনে একটি পোস্ট করলে বেগমপুরের তরুন সমাজ সেবক শামীম হোসেন মিজি’র নজরে পড়লে তিনি আজিজুল ইসলামের পাশে এসে দাড়ায়।

আজিজুল ইসলাম দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হওয়ায় কি পেশায় তাকে নিয়োজিত করা যায় এই নিয়ে অনেক ভেবে চিন্তে তাকে হিজলগাড়ী বাজারের একটি নিদিষ্ট স্থানে বসে সিদ্ধ ডিম বিক্রির আইডিয়া দিয়ে ডিম ও বাদাম কিনে দেয়। আজিজুল ইসলামের এই ব্যবসা শুরু দিন থেকে প্রতিদিন ২শ টাকার উপরে লাভ করতে থাকে।

এই দুমূর্ল্যের বাজারে আজিজুল ইসলাম যেনো স্ত্রী সন্তান নিয়ে ব্যবসা করে উন্নতি করতে পারে সে কারণে তার ব্যবসা প্রসারিত করার জন্য সমাজ সেবক শামীম হোসেন মিজি দর্শনা থানার মানবিক ওসির সাথে বিষয়টি আলোচনা করলে ওসি আজিজুলকে নিয়ে তার কাছে যেতে বলেন। সেই মোতাবেক গতকাল শামীম হোসেন মিজি আজিজুলকে দর্শনা থানায় নিয়ে যায়।

এবিষয়ে দর্শনা থানার ওসি মাহাব্বুর রহমান কাজল বলেন, আমাদের সমাজে অনেক মানুষ আছে যারা সুস্থ সবল হলেও কাজ করে খেতে চায় না। এবার অনেকেই আছে অর্থ উর্পাজনের জন্য অপরাধমুলক পেশার সাথে নিজে জড়িয়ে ফেলে ।

তাদের কাছে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী আজিজুল অনুকরণীয় হতে পারে।

Tag :
জনপ্রিয়

পান বরজে আগুন, পুড়ে শেষ হলো কৃষকের স্বপ্ন

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আজিজুল ইসলামের পাশে ওসি মাহবুবুর রহমান কাজল,,,,,

Update Time : ০৫:৪৭:৪১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০২০

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আজিজুল ইসলামের পাশে ওসি মাহবুবুর রহমান কাজল,,,,,,

আশরাফুজ্জামান রনিঃ গরীব অসহায় মানুষের কাছে এযেনো এক নিবেদিত প্রাণ: ওসি মাহবুবুর রহমান কাজল মন্তব্য করে বলেছেন এলাকাবাসী সেচ্ছায় ভিক্ষাবৃত্তি পেশা থেকে ফিরে এসে বাদাম ভাজা ও সিদ্ধ ডিম বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করা চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার হিজলগাড়ী গ্রামের দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আজিজুল ইসলামের রফফে( আকালে) ব্যবসা আরো প্রসারিত করার জন্য ব্যবসা করার উপকরণ ও আর্থিক সহযোগিতা করলেন দর্শনা থানার মানবিক ওসি মাহাব্বুর রহমান কাজল।

গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় বেগমপুরের তরুন সমাজসেবক শামীম হোসেন মিজির মাধ্যমে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আজিজুলকে দর্শনা থানায় ডেকে নিয়ে তার সাক্ষাত করেন দর্শনা থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মাহাব্বুর রহমান কাজল।

এসময় আজিজুল রহমানের ব্যবসা আরো প্রসারিত করার জন্য নিজ উদ্যোগে বাদাম, একটি বাদাম ভাজা কড়াই সহ প্রয়োজনীয় উপকরন ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন তিনি।

হিজলগাড়ী গ্রামের ফার্মপাড়ার আজিজুল ইসলাম পেশা একজন ভ্যান চালক হলেও বেশ কয়েক বছর আগে চিকিৎসার অভাবে দৃষ্টি শক্তি হারিয়ে ফেলেন। তারপর থেকেই তিনি ভিক্ষাবৃত্তি পেশা জড়িয়ে পড়েন।

গত মাসে হিজলগাড়ী প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক আরিফ হাসান তার নিজ ফেসবুক একাউন্টে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী আজিজুল ইসলাম সেচ্ছায় ভিক্ষা পেশা ছাড়তে চাই ক্যাপশনে একটি পোস্ট করলে বেগমপুরের তরুন সমাজ সেবক শামীম হোসেন মিজি’র নজরে পড়লে তিনি আজিজুল ইসলামের পাশে এসে দাড়ায়।

আজিজুল ইসলাম দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হওয়ায় কি পেশায় তাকে নিয়োজিত করা যায় এই নিয়ে অনেক ভেবে চিন্তে তাকে হিজলগাড়ী বাজারের একটি নিদিষ্ট স্থানে বসে সিদ্ধ ডিম বিক্রির আইডিয়া দিয়ে ডিম ও বাদাম কিনে দেয়। আজিজুল ইসলামের এই ব্যবসা শুরু দিন থেকে প্রতিদিন ২শ টাকার উপরে লাভ করতে থাকে।

এই দুমূর্ল্যের বাজারে আজিজুল ইসলাম যেনো স্ত্রী সন্তান নিয়ে ব্যবসা করে উন্নতি করতে পারে সে কারণে তার ব্যবসা প্রসারিত করার জন্য সমাজ সেবক শামীম হোসেন মিজি দর্শনা থানার মানবিক ওসির সাথে বিষয়টি আলোচনা করলে ওসি আজিজুলকে নিয়ে তার কাছে যেতে বলেন। সেই মোতাবেক গতকাল শামীম হোসেন মিজি আজিজুলকে দর্শনা থানায় নিয়ে যায়।

এবিষয়ে দর্শনা থানার ওসি মাহাব্বুর রহমান কাজল বলেন, আমাদের সমাজে অনেক মানুষ আছে যারা সুস্থ সবল হলেও কাজ করে খেতে চায় না। এবার অনেকেই আছে অর্থ উর্পাজনের জন্য অপরাধমুলক পেশার সাথে নিজে জড়িয়ে ফেলে ।

তাদের কাছে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী আজিজুল অনুকরণীয় হতে পারে।