০২:৩৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিশুকে বিস্কুট চকলেট কিনে দেওয়ার কথা বলে ধর্ষণ ও অপহরণ চেষ্টা আটক ১

  • Update Time : ০৫:০৬:৫১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • ৩২৬ Time View

২য় শ্রেণিতে পড়ুয়া শিশুকন্যার হাত ধরে টানাটানি করার অভিযোগে কুষ্টিয়া ইবি থানার শংকরদিয়ার বিচেলি ব্যবসায়ী সলেমান আলীকে (৪০) ভেদামারী গ্রামবাসী উত্তমমধ্যম দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে।

জানা যায়, শংকরদিয়া গ্রামের মৃত মুরাদ সর্দ্দারের ছেলে সলেমান আলী ভ্যানে বিচেলির ব্যবসা করেন বিভিন্ন গ্রামে। গতকাল বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) তিনি আলমডাঙ্গা উপজেলার ভেদামারী গ্রামে বিচেলি বিক্রি করে ফিরছিলেন। সে সময় ঘোলদাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছুটি হলে ২য় শ্রেণিতে পড়ুয়া ভেদামারী গ্রামের এক শিশুকন্যা বাড়ি ফিরছিলেন। রাস্তার ভেতর একা পেয়ে লম্পট সোলেমান আলী শিশুকন্যার হাত ধরে পাশের ভূট্টাক্ষেতে নিয়ে যেতে উদ্যত হয়। শিশুকন্যা যেতে না চাইলে তার হাত ধরে টানাটানি শুরু করেন। সে সময় শিশুকন্যা চিৎকার করলে নিকটবর্তী ভূট্টাক্ষেত থেকে তার বাবাসহ কয়েকজন কৃষক ছুটে যান ঘটনাস্থলে। তারা সোলেমান আলীকে পিটিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন।

ইতোপূর্বে এক শিশুকন্যাকে ধর্ষণের অপচেষ্টার অভিযোগে সলেমান আলীর নামে হরিণাকুণ্ডু থানায় মামলা করা হয়েছে।

আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ গণি মিয়া জানান, এ ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কোন মামলা করা হয়নি। শিশুকন্যাটির অভিভাবকদের কেউ মামলা করতে সম্মত হচ্ছেন না। শিশুকন্যাটির ও তার মা বাবার বদনাম হতে পারে এমন আশঙ্কা থেকেই তারা মামলা না করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন বলে উল্লেখ করেন।

জনপ্রিয়

নীলমনিগনজ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এস এস সি ৯৭ ব্যাচের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

শিশুকে বিস্কুট চকলেট কিনে দেওয়ার কথা বলে ধর্ষণ ও অপহরণ চেষ্টা আটক ১

Update Time : ০৫:০৬:৫১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

২য় শ্রেণিতে পড়ুয়া শিশুকন্যার হাত ধরে টানাটানি করার অভিযোগে কুষ্টিয়া ইবি থানার শংকরদিয়ার বিচেলি ব্যবসায়ী সলেমান আলীকে (৪০) ভেদামারী গ্রামবাসী উত্তমমধ্যম দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে।

জানা যায়, শংকরদিয়া গ্রামের মৃত মুরাদ সর্দ্দারের ছেলে সলেমান আলী ভ্যানে বিচেলির ব্যবসা করেন বিভিন্ন গ্রামে। গতকাল বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) তিনি আলমডাঙ্গা উপজেলার ভেদামারী গ্রামে বিচেলি বিক্রি করে ফিরছিলেন। সে সময় ঘোলদাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছুটি হলে ২য় শ্রেণিতে পড়ুয়া ভেদামারী গ্রামের এক শিশুকন্যা বাড়ি ফিরছিলেন। রাস্তার ভেতর একা পেয়ে লম্পট সোলেমান আলী শিশুকন্যার হাত ধরে পাশের ভূট্টাক্ষেতে নিয়ে যেতে উদ্যত হয়। শিশুকন্যা যেতে না চাইলে তার হাত ধরে টানাটানি শুরু করেন। সে সময় শিশুকন্যা চিৎকার করলে নিকটবর্তী ভূট্টাক্ষেত থেকে তার বাবাসহ কয়েকজন কৃষক ছুটে যান ঘটনাস্থলে। তারা সোলেমান আলীকে পিটিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন।

ইতোপূর্বে এক শিশুকন্যাকে ধর্ষণের অপচেষ্টার অভিযোগে সলেমান আলীর নামে হরিণাকুণ্ডু থানায় মামলা করা হয়েছে।

আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ গণি মিয়া জানান, এ ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কোন মামলা করা হয়নি। শিশুকন্যাটির অভিভাবকদের কেউ মামলা করতে সম্মত হচ্ছেন না। শিশুকন্যাটির ও তার মা বাবার বদনাম হতে পারে এমন আশঙ্কা থেকেই তারা মামলা না করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন বলে উল্লেখ করেন।