০১:৪১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাংনীর ধানখোলা গ্রামে চাচাত ভাইদের হামলায় মা ছেলে আহত

  • Update Time : ১১:২৭:২৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ অগাস্ট ২০২৩
  • ৩৪ Time View

গাংনী উপজেলার ধানখোলালা মাঝের পাড়া গ্রামে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে মা ছেলেকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষরা। আহতরা হলেন- ধানখোলা গ্রামের ইয়ামিনের ছেলে ইয়ারুল ইসলাম(৩০) ও তার স্ত্রী রোকেয়া খাতুন(৪৬)।

এসময় আহতদের রান্নাঘর ও আসবাপত্র ভাংচুর করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত ইয়ারুল ইসলাম জানান, চুয়াডাঙ্গার আহসান মিয়ার ৮শতক জমির মধ্যে ৫শতক জমি ক্রয় করেন ইয়ারুল ইসলামের চাচাত ভাইয়েরা। বাঁকি ৩ শতক জমিতে প্রায় ৬০ বছর যাবত ঘর থাকায় উক্ত তিন শতক জমি আহসান মিয়ার নিকট থেকে ইয়ারুল ইসলাম ক্রয় করতে চাইলে বাঁধা দেয় ছিয়ামিনের তিন ছেলে আহাম্মদ, জিয়ারুল ও জিনারুল ইসলাম। এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হলে ছিয়ামিনের তিন ছেলে আহাম্মদ, জিয়ারুল ও জিনারুল ইসলাম লোহার রড ও বাঁশের লাঠি দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেন ইয়ারুল ইসলাম ও তার মা রোকেয়া খাতুনকে। শুধু তাই নয়, এসময় ইয়ারুল ইসলামের রান্নাঘর ও আসবাপত্র ভাংচুর করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

Tag :
জনপ্রিয়

নীলমনিগনজ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এস এস সি ৯৭ ব্যাচের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

গাংনীর ধানখোলা গ্রামে চাচাত ভাইদের হামলায় মা ছেলে আহত

Update Time : ১১:২৭:২৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ অগাস্ট ২০২৩

গাংনী উপজেলার ধানখোলালা মাঝের পাড়া গ্রামে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে মা ছেলেকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষরা। আহতরা হলেন- ধানখোলা গ্রামের ইয়ামিনের ছেলে ইয়ারুল ইসলাম(৩০) ও তার স্ত্রী রোকেয়া খাতুন(৪৬)।

এসময় আহতদের রান্নাঘর ও আসবাপত্র ভাংচুর করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত ইয়ারুল ইসলাম জানান, চুয়াডাঙ্গার আহসান মিয়ার ৮শতক জমির মধ্যে ৫শতক জমি ক্রয় করেন ইয়ারুল ইসলামের চাচাত ভাইয়েরা। বাঁকি ৩ শতক জমিতে প্রায় ৬০ বছর যাবত ঘর থাকায় উক্ত তিন শতক জমি আহসান মিয়ার নিকট থেকে ইয়ারুল ইসলাম ক্রয় করতে চাইলে বাঁধা দেয় ছিয়ামিনের তিন ছেলে আহাম্মদ, জিয়ারুল ও জিনারুল ইসলাম। এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হলে ছিয়ামিনের তিন ছেলে আহাম্মদ, জিয়ারুল ও জিনারুল ইসলাম লোহার রড ও বাঁশের লাঠি দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেন ইয়ারুল ইসলাম ও তার মা রোকেয়া খাতুনকে। শুধু তাই নয়, এসময় ইয়ারুল ইসলামের রান্নাঘর ও আসবাপত্র ভাংচুর করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।