০৩:৩০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কার্পাসডাঙ্গা পীরপুরকুল্লায় প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা খেল চা দোকানী

  • Update Time : ০৫:২১:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ জুন ২০২৩
  • ৩৫ Time View

 

চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের পীরপুরকুল্লা গ্রামের প্রবাসী কলিমের স্ত্রী তিন সন্তানের জননী উপজেলার নাটুদাহ ইউনিয়নের চন্দ্রবাস গ্রামের ভৈরবগর পাড়ার মফির মেয়ে লাভলী গতকাল সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টার দিকে একই গ্রামের রেজাউলের ছেলে চা দোকানী মিজানের সাথে আপত্তিকর অবস্থায় স্থানীয়রা আটক করে।পরে চড়ে থাপ্পর মেরে মিজানকে তাড়িয়ে দেয় স্থানীয়রা।নাম না প্রকাশ করার শর্তে স্থানীয় অনেকে বলেন মাসখানেক আগেও লাভলী তার এক দেবরের সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়েছিলো।তার পরকীয়া সম্পর্কের কোন শেষ নেই।একাধিক পুরুষে আসক্ত সে।আর মিজানের চরিত্রও খুব খারাপ। সে মাদ্রাসা পড়াকালীন সময়ে বাগোয়ানের তার এ শিক্ষকের স্ত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করে।মিজান স্থানীয় একটি মক্তবে ইমামতি করে।গতকাল সোমবার সকালে মহল্লাবাসী মক্তবে আর ইমামতি না করার জন্য নিষেধ করেছে।গতকাল সোমবার সকালে লাভলী তার সকল জিনিসপত্র গুছিয়ে পিতার বাড়ি চলে যায়।এ বিষয়ে জানতে লাভলীর সাথে কথা বললে তিনি কোন মন্তব্য করেন নি।সাংবাদিক দেখে দ্রুত সরে পাড়েন। ঘটনার পর থেকেই মিজান এলাকা ছাড়া হয়েছে। স্থানীয়রা জানান বিষয়টির সামাজিক একটা সুরাহ

হওয়া দরকার।লাভলী প্রয়োজনে তার যে কোন একজন পরকীয়া প্রেমিকের সাথে বিয়ে করে সংসার করুক।কিন্তু একেকবার একেকজনের সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ায় এ মহল্লায় সামাজিক অবক্ষয় দেখা দিতে পারে

Tag :
জনপ্রিয়

প্রথম রাজধানী গ্রুপের অ্যাডমিন প্যানেলের ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

কার্পাসডাঙ্গা পীরপুরকুল্লায় প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা খেল চা দোকানী

Update Time : ০৫:২১:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ জুন ২০২৩

 

চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের পীরপুরকুল্লা গ্রামের প্রবাসী কলিমের স্ত্রী তিন সন্তানের জননী উপজেলার নাটুদাহ ইউনিয়নের চন্দ্রবাস গ্রামের ভৈরবগর পাড়ার মফির মেয়ে লাভলী গতকাল সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টার দিকে একই গ্রামের রেজাউলের ছেলে চা দোকানী মিজানের সাথে আপত্তিকর অবস্থায় স্থানীয়রা আটক করে।পরে চড়ে থাপ্পর মেরে মিজানকে তাড়িয়ে দেয় স্থানীয়রা।নাম না প্রকাশ করার শর্তে স্থানীয় অনেকে বলেন মাসখানেক আগেও লাভলী তার এক দেবরের সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়েছিলো।তার পরকীয়া সম্পর্কের কোন শেষ নেই।একাধিক পুরুষে আসক্ত সে।আর মিজানের চরিত্রও খুব খারাপ। সে মাদ্রাসা পড়াকালীন সময়ে বাগোয়ানের তার এ শিক্ষকের স্ত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করে।মিজান স্থানীয় একটি মক্তবে ইমামতি করে।গতকাল সোমবার সকালে মহল্লাবাসী মক্তবে আর ইমামতি না করার জন্য নিষেধ করেছে।গতকাল সোমবার সকালে লাভলী তার সকল জিনিসপত্র গুছিয়ে পিতার বাড়ি চলে যায়।এ বিষয়ে জানতে লাভলীর সাথে কথা বললে তিনি কোন মন্তব্য করেন নি।সাংবাদিক দেখে দ্রুত সরে পাড়েন। ঘটনার পর থেকেই মিজান এলাকা ছাড়া হয়েছে। স্থানীয়রা জানান বিষয়টির সামাজিক একটা সুরাহ

হওয়া দরকার।লাভলী প্রয়োজনে তার যে কোন একজন পরকীয়া প্রেমিকের সাথে বিয়ে করে সংসার করুক।কিন্তু একেকবার একেকজনের সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ায় এ মহল্লায় সামাজিক অবক্ষয় দেখা দিতে পারে