১২:০৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রতিবন্ধী কোটায় শিক্ষক পদে সুমনকে নিয়োগের নির্দেশ

  • Update Time : ০১:৪৬:৪০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৯ জুন ২০২৩
  • ৪২ Time View

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে ঢাকার ডেমরার সুমনকে ১০ শতাংশ প্রতিবন্ধী কোটা অনুসারে নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সুমনের রিটে জারি করা রুল নিষ্পত্তি করে বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

রায় ঘোষণার ৯০ দিনের মধ্যে সুমনকে নিয়োগ দিতে বলা হয়েছে। আদালতে সুমনের পক্ষে বিনামূল্যে লড়েছেন আইনজীবী মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশ গুপ্ত।

আইনজীবী মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া বলেন, সুমন একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী। তিনি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ২০১৪ সালের ১৪ সেপ্টেম্বরের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী প্রতিবন্ধী কোটায় নিয়োগের জন্য আবেদন করেন। পরে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নেন।

২০১৮ সালে এ নিয়োগ পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশিত হয়, যেখানে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ১৯৯৭ সালের ১৭ মার্চের পরিপত্র অনুযায়ী নির্ধারিত ১০ শতাংশ প্রতিবন্ধী কোটায় মো. সুমনকে সুযোগ দেওয়া হয়নি।

প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা-২০১৯ এর ৮ এর ২ বিধি মতে নিয়োগ পরীক্ষা-২০১৪ এর ২০১৮ সালে প্রকাশিত চূড়ান্ত ফলাফলে ১০ শতাংশ প্রতিবন্ধী কোটা পূরণ করে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ পাওয়ার বৈধ অধিকারী ছিল সুমন।

Tag :
জনপ্রিয়

পান বরজে আগুন, পুড়ে শেষ হলো কৃষকের স্বপ্ন

প্রতিবন্ধী কোটায় শিক্ষক পদে সুমনকে নিয়োগের নির্দেশ

Update Time : ০১:৪৬:৪০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৯ জুন ২০২৩

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে ঢাকার ডেমরার সুমনকে ১০ শতাংশ প্রতিবন্ধী কোটা অনুসারে নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সুমনের রিটে জারি করা রুল নিষ্পত্তি করে বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

রায় ঘোষণার ৯০ দিনের মধ্যে সুমনকে নিয়োগ দিতে বলা হয়েছে। আদালতে সুমনের পক্ষে বিনামূল্যে লড়েছেন আইনজীবী মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশ গুপ্ত।

আইনজীবী মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া বলেন, সুমন একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী। তিনি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ২০১৪ সালের ১৪ সেপ্টেম্বরের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী প্রতিবন্ধী কোটায় নিয়োগের জন্য আবেদন করেন। পরে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নেন।

২০১৮ সালে এ নিয়োগ পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশিত হয়, যেখানে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ১৯৯৭ সালের ১৭ মার্চের পরিপত্র অনুযায়ী নির্ধারিত ১০ শতাংশ প্রতিবন্ধী কোটায় মো. সুমনকে সুযোগ দেওয়া হয়নি।

প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা-২০১৯ এর ৮ এর ২ বিধি মতে নিয়োগ পরীক্ষা-২০১৪ এর ২০১৮ সালে প্রকাশিত চূড়ান্ত ফলাফলে ১০ শতাংশ প্রতিবন্ধী কোটা পূরণ করে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ পাওয়ার বৈধ অধিকারী ছিল সুমন।