০১:০২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গরমে লুঙ্গি পরে অফিস করার অনুমতি চেয়ে আবেদন

  • Update Time : ০১:২০:৩১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১০ জুন ২০২৩
  • ৪২ Time View

 

প্রচণ্ড দাবদাহ ও ভ্যাপসা গরমে জনজীবন অতিষ্ঠ। ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে গরমটা আরো বেশি অনুভূত হচ্ছে। ফলে অফিসে স্বস্তিতে কাজ করতে পারছেন না কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এ অবস্থায় লুঙ্গি পরে অফিস করার অনুমতি চেয়ে কর্তৃপক্ষ বরাবর আবেদন করেছেন এক কর্মচারী।

বৃহস্পতিবার (৮ জুন) নীলফামারীর সৈয়দপুরে একটি বিমা কোম্পানির এক কর্মচারী আবেদনটি করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করছেন ওই প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক এসরাফ আহমেদ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ওই কর্মচারীর নাম নওশাদ আনছারী। তিনি বিমা কোম্পানি সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির সৈয়দপুর শাখায় কম্পিউটার অপারেটর পদে কাজ করেন।

আবেদনপত্রে নওশাদ আনছারী লিখেছেন, সারাদেশে বইছে তীব্র দাবদাহ। সৈয়দপুরে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা অনুভূত হচ্ছে। বৃষ্টিহীন অসহ্য গরম ও ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে একটানা প্যান্ট পরে কাজ করা দুরূহ হয়ে পড়েছে। এতে শরীরের নানা স্থানে চুলকানিও শুরু হয়েছে। তাই লুঙ্গি পরে অফিস করার অনুমতি চান তিনি।

 

বিদ্যুৎ না থাকায় কম্পিউটারে কম্পোজ করতে পারেননি। তাই হাতে লিখে আবেদনটি করেছেন বলে বিশেষ দ্রষ্টব্যে উল্লেখ করেছেন কম্পিউটার অপারেটর নওশাদ আনছারী।

এদিকে চিঠির উত্তর এখনও পাননি জানিয়ে নওশাদ আনছারী বলেন, ‘আমি আসলেই মন থেকে আবেদনটি করেছি। অনেকেই বিষয়টি হাসি-ঠাট্টা হিসেবে নিলেও এটাই বাস্তবতা।’

তিনি আরো বলেন, ‘এখনো চিঠির উত্তর পাইনি। তবে এ বিষয়ে ভালো সিদ্ধান্ত আশা করি।’

জানতে চাইলে সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির সৈয়দপুর শাখার ব্যবস্থাপক এসরাফ আহমেদ বলেন, ‘লুঙ্গি পরে অফিস করার বিষয়ে একটি আবেদন পেয়েছি। তবে এ বিষয়ে এখনো আলোচনা হয়নি। রোববার (১১ জুন) হবে

Tag :
জনপ্রিয়

পান বরজে আগুন, পুড়ে শেষ হলো কৃষকের স্বপ্ন

গরমে লুঙ্গি পরে অফিস করার অনুমতি চেয়ে আবেদন

Update Time : ০১:২০:৩১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১০ জুন ২০২৩

 

প্রচণ্ড দাবদাহ ও ভ্যাপসা গরমে জনজীবন অতিষ্ঠ। ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে গরমটা আরো বেশি অনুভূত হচ্ছে। ফলে অফিসে স্বস্তিতে কাজ করতে পারছেন না কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এ অবস্থায় লুঙ্গি পরে অফিস করার অনুমতি চেয়ে কর্তৃপক্ষ বরাবর আবেদন করেছেন এক কর্মচারী।

বৃহস্পতিবার (৮ জুন) নীলফামারীর সৈয়দপুরে একটি বিমা কোম্পানির এক কর্মচারী আবেদনটি করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করছেন ওই প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক এসরাফ আহমেদ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ওই কর্মচারীর নাম নওশাদ আনছারী। তিনি বিমা কোম্পানি সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির সৈয়দপুর শাখায় কম্পিউটার অপারেটর পদে কাজ করেন।

আবেদনপত্রে নওশাদ আনছারী লিখেছেন, সারাদেশে বইছে তীব্র দাবদাহ। সৈয়দপুরে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা অনুভূত হচ্ছে। বৃষ্টিহীন অসহ্য গরম ও ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে একটানা প্যান্ট পরে কাজ করা দুরূহ হয়ে পড়েছে। এতে শরীরের নানা স্থানে চুলকানিও শুরু হয়েছে। তাই লুঙ্গি পরে অফিস করার অনুমতি চান তিনি।

 

বিদ্যুৎ না থাকায় কম্পিউটারে কম্পোজ করতে পারেননি। তাই হাতে লিখে আবেদনটি করেছেন বলে বিশেষ দ্রষ্টব্যে উল্লেখ করেছেন কম্পিউটার অপারেটর নওশাদ আনছারী।

এদিকে চিঠির উত্তর এখনও পাননি জানিয়ে নওশাদ আনছারী বলেন, ‘আমি আসলেই মন থেকে আবেদনটি করেছি। অনেকেই বিষয়টি হাসি-ঠাট্টা হিসেবে নিলেও এটাই বাস্তবতা।’

তিনি আরো বলেন, ‘এখনো চিঠির উত্তর পাইনি। তবে এ বিষয়ে ভালো সিদ্ধান্ত আশা করি।’

জানতে চাইলে সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির সৈয়দপুর শাখার ব্যবস্থাপক এসরাফ আহমেদ বলেন, ‘লুঙ্গি পরে অফিস করার বিষয়ে একটি আবেদন পেয়েছি। তবে এ বিষয়ে এখনো আলোচনা হয়নি। রোববার (১১ জুন) হবে