১০:২১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাণীনগরে শিক্ষক-ছাত্রীর অনৈতিক কর্মকান্ডের ভিডিও ভাইরাল অভিযুক্ত শিক্ষককে শোকজ

  • Update Time : ০৮:৪১:০২ অপরাহ্ন, বুধবার, ৫ মে ২০২১
  • ৩৪ Time View

মোঃ আব্দুল মালেক,  নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার সদরের উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুর ওই স্কুলের এক ছাত্রীর সঙ্গে তার প্রাইভেটে অনৈতিক কর্মকান্ডের ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন পত্রিকায় ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রকাশের পর মিটিং করে অভিযুক্ত শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুকে শোকজ করেছে ওই বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

 

মঙ্গলবার প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিসহ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য ও প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকগণ মিটিং করে ওই শিক্ষককে শোকজ করেছে। এ ঘটনায় আগামী ৭ দিনের মধ্যে তাকে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে। অভিযুক্ত শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটু উপজেলার সদর ইউনিয়নের বেলোবাড়ি গ্রামের মৃত আসরত আলী মিনার ছেলে।

 

জানা গেছে, শনিবার (১ মে) থেকে বিভিন্ন ফেসবুক আইডি ও লাইক পেজে শিক্ষক-ছাত্রীর অনৈতিক কর্মকান্ডের ভিডিও ফুটেজ ভাইরাল হয়। এ ঘটনাটিকে নিয়ে এলাকায় সমালোচনার ঝড় বইছে। দ্রুত ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছিলেন স্থানীয়রা ও স্কুল ছাত্রীদের অবিভাবকরা।

 

আরো জানা গেছে, অভিযুক্ত সাদেকুল ইসলাম পিটু প্রায় ১০-১২ বছর আগে রাণীনগর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে সহকারী গ্রন্থাগারী হিসাবে যোগদান করেন। এরপর থেকেই পিটু ওই বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের পাইভেট পরাতেন। চলিত বছরে তিনি সহকারী শিক্ষক (গ্রন্থাগার বিজ্ঞান) শিক্ষক হয়েছেন। এরই মাঝে ওই স্কুলের এক ছাত্রীর সাথে তার পাইভেটে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে উঠে। এ বিষয়ে ভিডিও ধারণ করা হয়েছে মর্মে গত বছর স্থানীয়দের মধ্যে জানা জানি হয়। সেই সময় স্থানীয় এক প্রভাবশালী নেতার হস্তক্ষেপে বিষয়টি ধামচাপা দেওয়া হয়। তারপর থেকেই বিষয়টি আর আলোর মুখ দেখেনি। এর পর হটাৎ করে শনিবার (১ মে) ফেসবুক আইডি ইংরেজিতে লেখা “ইসলাম ইসলাম” নামে এক আইডি থেকে ৫ মিনিট ১০ সেকেন্ডের শিক্ষক-ছাত্রীর অনৈতিক কর্মকান্ডের ভিডিও ভাইরাল করা হয়। পরে সেই আইডির ভিডিও থেকে স্কিনসট দেওয়া ছবি ফেসবুকের বিভিন্ন আইডি থেকে ভাইরাল হয়। এছাড়া ফেসবুকের লাইক পেজ “তুমি নেই সারাদিন” সহ বিভিন্ন পেজ ও আইডি থেকে ওই ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে।

 

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত রাণীনগর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার মুঠোফোন বন্ধ থাকায় মন্তব্য পাওয়া সম্ভব হয়নি।

 

রাণীনগর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ ঘটনায় বিভিন্ন পত্রিকায় ও অনলাইনে সংবাদ প্রচারের পর মঙ্গলবার ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুকে শোকজ করা হয়েছে।

 

এ ব্যাপারে রাণীনগর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি গোলাম হোসেন গোল্লা বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিলো না। ঘটনাটি জানার পর জরুরী ভিত্তিতে মিটিং ডাকার জন্য প্রতিষ্ঠান প্রধানকে বলি। সে ভিত্তিতে মঙ্গলবার মিটিং করা হয়। মিটিং এর মাধ্যমে আমরা উক্ত ঘটনার জন্য শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুকে শোকজ করার সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রধান শিক্ষককে শোকজ করতে বলেছি। তার জবাবের পর পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

এ ব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রুহুল আমিন বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুকে শোকজ করা হয়েছে আমি শুনেছি। শোকজের জবাবের পর তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Tag :
জনপ্রিয়

চুয়াডাঙ্গায় ফ্রি হস্তশিল্প প্রশিক্ষণ চলমান

রাণীনগরে শিক্ষক-ছাত্রীর অনৈতিক কর্মকান্ডের ভিডিও ভাইরাল অভিযুক্ত শিক্ষককে শোকজ

Update Time : ০৮:৪১:০২ অপরাহ্ন, বুধবার, ৫ মে ২০২১

মোঃ আব্দুল মালেক,  নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার সদরের উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুর ওই স্কুলের এক ছাত্রীর সঙ্গে তার প্রাইভেটে অনৈতিক কর্মকান্ডের ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন পত্রিকায় ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রকাশের পর মিটিং করে অভিযুক্ত শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুকে শোকজ করেছে ওই বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

 

মঙ্গলবার প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিসহ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য ও প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকগণ মিটিং করে ওই শিক্ষককে শোকজ করেছে। এ ঘটনায় আগামী ৭ দিনের মধ্যে তাকে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে। অভিযুক্ত শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটু উপজেলার সদর ইউনিয়নের বেলোবাড়ি গ্রামের মৃত আসরত আলী মিনার ছেলে।

 

জানা গেছে, শনিবার (১ মে) থেকে বিভিন্ন ফেসবুক আইডি ও লাইক পেজে শিক্ষক-ছাত্রীর অনৈতিক কর্মকান্ডের ভিডিও ফুটেজ ভাইরাল হয়। এ ঘটনাটিকে নিয়ে এলাকায় সমালোচনার ঝড় বইছে। দ্রুত ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছিলেন স্থানীয়রা ও স্কুল ছাত্রীদের অবিভাবকরা।

 

আরো জানা গেছে, অভিযুক্ত সাদেকুল ইসলাম পিটু প্রায় ১০-১২ বছর আগে রাণীনগর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে সহকারী গ্রন্থাগারী হিসাবে যোগদান করেন। এরপর থেকেই পিটু ওই বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের পাইভেট পরাতেন। চলিত বছরে তিনি সহকারী শিক্ষক (গ্রন্থাগার বিজ্ঞান) শিক্ষক হয়েছেন। এরই মাঝে ওই স্কুলের এক ছাত্রীর সাথে তার পাইভেটে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে উঠে। এ বিষয়ে ভিডিও ধারণ করা হয়েছে মর্মে গত বছর স্থানীয়দের মধ্যে জানা জানি হয়। সেই সময় স্থানীয় এক প্রভাবশালী নেতার হস্তক্ষেপে বিষয়টি ধামচাপা দেওয়া হয়। তারপর থেকেই বিষয়টি আর আলোর মুখ দেখেনি। এর পর হটাৎ করে শনিবার (১ মে) ফেসবুক আইডি ইংরেজিতে লেখা “ইসলাম ইসলাম” নামে এক আইডি থেকে ৫ মিনিট ১০ সেকেন্ডের শিক্ষক-ছাত্রীর অনৈতিক কর্মকান্ডের ভিডিও ভাইরাল করা হয়। পরে সেই আইডির ভিডিও থেকে স্কিনসট দেওয়া ছবি ফেসবুকের বিভিন্ন আইডি থেকে ভাইরাল হয়। এছাড়া ফেসবুকের লাইক পেজ “তুমি নেই সারাদিন” সহ বিভিন্ন পেজ ও আইডি থেকে ওই ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে।

 

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত রাণীনগর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার মুঠোফোন বন্ধ থাকায় মন্তব্য পাওয়া সম্ভব হয়নি।

 

রাণীনগর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ ঘটনায় বিভিন্ন পত্রিকায় ও অনলাইনে সংবাদ প্রচারের পর মঙ্গলবার ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুকে শোকজ করা হয়েছে।

 

এ ব্যাপারে রাণীনগর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি গোলাম হোসেন গোল্লা বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিলো না। ঘটনাটি জানার পর জরুরী ভিত্তিতে মিটিং ডাকার জন্য প্রতিষ্ঠান প্রধানকে বলি। সে ভিত্তিতে মঙ্গলবার মিটিং করা হয়। মিটিং এর মাধ্যমে আমরা উক্ত ঘটনার জন্য শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুকে শোকজ করার সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রধান শিক্ষককে শোকজ করতে বলেছি। তার জবাবের পর পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

এ ব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রুহুল আমিন বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম পিটুকে শোকজ করা হয়েছে আমি শুনেছি। শোকজের জবাবের পর তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।