০২:১২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কার্পাসডাঙ্গা কানাইডাঙ্গায় ধান কাটাকে কেন্দ্র করে গার্মেন্টস ব্যাবসায়ী জাহাঙ্গীর ও কামরুলের নেতৃত্বে হামলা :আহত -১

  • Update Time : ১০:৪১:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১
  • ৪৫ Time View

 

কার্পাসডাঙ্গা প্রতিনিধি:জেলার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের কানাইডাঙ্গা গ্রামে ধান কাটাকে কেন্দ্র করে কানাইডাঙ্গা গ্রামের আমিনউদ্দীনের ছেলে গার্মেন্টস ব্যাবসায়ী জাহাঙ্গীর ও কলিম উদ্দীনের ছেলে কামরুলের নেতৃত্বে হামলা চালিয়ে কানাইডাঙ্গা গ্রামের সিরাজুলের ছেলে তাহাজুত কে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেবার ঘটনা ঘটেছে।ঘটনার খবর পেয়ে চারুলিয়া পুলিশ ফাঁড়ি,কার্পাসডাঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ি ও দামুড়হুদা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে এসে পরিস্থিতি শান্ত করে।জানা গেছে  ফজর মন্ডলের ছেলে খবির উদ্দীন থেকে তার মেয়ে আনুরা সহ ছেলেরা অংশীদারিত্ব পাই।কামরুল ১ শরিকানার কাছে ১০ কাঠা জমি কিনলেও জোর পূর্বক ১ বিঘা ১০ কাঠা জমি চাষ করছে বলে অভিযোগ করেন তাহাজুতের ভাই সাহা মানিক।সে জানান গতকাল শক্রুবার সকালে  তাদের জমিতে ধান কাটতে গেলে জাহাঙ্গীর,কামরুল,গনির ছেলে নুরজামাল,ওবাই,মিঠু,রবির ছেলে তাহাজুল,আতিয়ারের ছেলে মজিবার,মোশারোফের ছেলে আতিয়ার লাঠিসোঠা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাঁদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ও মারধর শুরু করে। এতে করে তাজেরের মাথা ফেটে যায়।সে বর্তমানে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছে।ঘটনার খবর পেয়ে চারুলিয়া ক্যাম্প ইনচার্জ এস আই ফরিদুল ইসলাম,কার্পাসডাঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই আতিকুর রহমান জুয়েল,এ এস আই জাহিদ হাসান সহ দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে হাজির হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেন।সেই সাথে চারুলিয়া ক্যাম্প পুলিশ বেশ কিছু লাঠিসোঠা উদ্ধার করেন।কামরুল জানান ধান তিনি লাগিয়েছেন ত্রিশ দাগে জমি কিনলেও তিনি সমন্বয় করে ৮ দাগে করেন। সাহা মানিক দাবী করেন জমি তাঁদের। রেকর্ড সহ সব কাগজপত্র তাদের। ধান তারাই লাগিয়েছে।এ বিষয়ে সুরহা করতে চারুলিয়া ক্যাম্প উভয়পক্ষ কে নিয়ে বসে তদন্ত করে প্রকৃত ধান কারা লাগিয়েছেন সেটা দেখবেন বলে জানান।

Tag :
জনপ্রিয়

প্রথম রাজধানী গ্রুপের অ্যাডমিন প্যানেলের ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

কার্পাসডাঙ্গা কানাইডাঙ্গায় ধান কাটাকে কেন্দ্র করে গার্মেন্টস ব্যাবসায়ী জাহাঙ্গীর ও কামরুলের নেতৃত্বে হামলা :আহত -১

Update Time : ১০:৪১:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১

 

কার্পাসডাঙ্গা প্রতিনিধি:জেলার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের কানাইডাঙ্গা গ্রামে ধান কাটাকে কেন্দ্র করে কানাইডাঙ্গা গ্রামের আমিনউদ্দীনের ছেলে গার্মেন্টস ব্যাবসায়ী জাহাঙ্গীর ও কলিম উদ্দীনের ছেলে কামরুলের নেতৃত্বে হামলা চালিয়ে কানাইডাঙ্গা গ্রামের সিরাজুলের ছেলে তাহাজুত কে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেবার ঘটনা ঘটেছে।ঘটনার খবর পেয়ে চারুলিয়া পুলিশ ফাঁড়ি,কার্পাসডাঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ি ও দামুড়হুদা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে এসে পরিস্থিতি শান্ত করে।জানা গেছে  ফজর মন্ডলের ছেলে খবির উদ্দীন থেকে তার মেয়ে আনুরা সহ ছেলেরা অংশীদারিত্ব পাই।কামরুল ১ শরিকানার কাছে ১০ কাঠা জমি কিনলেও জোর পূর্বক ১ বিঘা ১০ কাঠা জমি চাষ করছে বলে অভিযোগ করেন তাহাজুতের ভাই সাহা মানিক।সে জানান গতকাল শক্রুবার সকালে  তাদের জমিতে ধান কাটতে গেলে জাহাঙ্গীর,কামরুল,গনির ছেলে নুরজামাল,ওবাই,মিঠু,রবির ছেলে তাহাজুল,আতিয়ারের ছেলে মজিবার,মোশারোফের ছেলে আতিয়ার লাঠিসোঠা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাঁদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ও মারধর শুরু করে। এতে করে তাজেরের মাথা ফেটে যায়।সে বর্তমানে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছে।ঘটনার খবর পেয়ে চারুলিয়া ক্যাম্প ইনচার্জ এস আই ফরিদুল ইসলাম,কার্পাসডাঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই আতিকুর রহমান জুয়েল,এ এস আই জাহিদ হাসান সহ দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে হাজির হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেন।সেই সাথে চারুলিয়া ক্যাম্প পুলিশ বেশ কিছু লাঠিসোঠা উদ্ধার করেন।কামরুল জানান ধান তিনি লাগিয়েছেন ত্রিশ দাগে জমি কিনলেও তিনি সমন্বয় করে ৮ দাগে করেন। সাহা মানিক দাবী করেন জমি তাঁদের। রেকর্ড সহ সব কাগজপত্র তাদের। ধান তারাই লাগিয়েছে।এ বিষয়ে সুরহা করতে চারুলিয়া ক্যাম্প উভয়পক্ষ কে নিয়ে বসে তদন্ত করে প্রকৃত ধান কারা লাগিয়েছেন সেটা দেখবেন বলে জানান।