এখন পর্যন্ত এ খবরটি সর্বমোট দেখা হয়েছে 461 

ক্রীড়া প্রতিবেদকঃ যাদের ক্রিকেট ঐতিহ্য এত প্রাচীন, এত সমৃদ্ধ, যাদের ক্রিকেট কাঠামো এত শক্তিশালী—সেই ইংল্যান্ড কেন বিশ্বকাপ শিরোপা জেতে না? শুধু শক্তিশালী ক্রিকেট অবকাঠামোই নয়, শুধু সমৃদ্ধ ক্রিকেট ঐতিহ্যই নয়, খেলাটার আবিষ্কারকও তো ইংলিশরাই। যে খেলাটা তারা জন্ম দিল, পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে দিল, সেটির শিরোপা তাদের পেতে কেন এত অপেক্ষা? অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট অবকাঠামো কিংবা ঐতিহ্য ইংলিশদের মতোই। অস্ট্রেলিয়ানরা পাঁচটি বিশ্বকাপ শিরোপা জিতে নিজেদের নামের সুবিচার অনেকবারই করেছে। ইংল্যান্ড যেন কোথায় বারবার থমকে যাচ্ছিল। ১৯৭৯, ১৯৮৭, ১৯৯২—তিন বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংলিশদের স্বপ্ন কেড়ে নিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ, অস্ট্রেলিয়া আর পাকিস্তান। এতবার ফাইনাল খেলে বিশ্বকাপ না-জেতার দুঃখ আর কোনো দলেরই ছিল না। গত বিশ্বকাপে বাংলাদেশের কাছে হেরে বিদায় নেওয়ার পর নতুন করে সব ঢেলে সাজিয়েছিল ইংল্যান্ড। ২০১৯, ঘরের মাঠে বিশ্বকাপ। সুযোগটা আর হাতছাড়া করা যাবে না—এ লক্ষ্যেই বিরাট এক ‘প্রকল্প’ই চার বছর আগ থেকেই হাতে নিয়েছিল ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড। ২০১৫ বিশ্বকাপের ব্যর্থতা থেকে গা ঝাড়া
দিয়ে উঠেছিল ইংলিশরা।

পর্যাপ্ত সুযোগ দিয়ে বেন স্টোকস, জস বাটলার, এউইন মরগান, জেসন রয়, জো রুট, জনি বেয়ারস্টোর দুর্দান্ত সব ব্যাটসম্যানদের সমন্বয়ে গড়ে তোলা হয়েছে ভীষণ শক্তিশালী এক ব্যাটিং অর্ডরার। সঙ্গে দুর্দান্ত বোলিং আক্রমণ। আর নিখুঁত ফিল্ডিং তো আছেই। চার বছর ঘরের মাঠে ইংল্যান্ড হাই স্কোরিং উইকেটে খেলে তৈরি করেছে মুক্ত হাতে স্ট্রোক খেলার অভ্যাস। বোলাররা নিজেদের তৈরি করেছে কীভাবে হাই স্কোর ডিফেন্ড করা যায়। স্নায়ুর সঙ্গে লড়ে কীভাবে ম্যাচ নিজেদের মুঠোয় নিতে হয়—গত চার বছরের সব চেষ্টা অবশেষে সফল হয়েছে ইংল্যান্ডের।
ইংল্যান্ডের প্রতিটি মাঠেই কত শত মুগ্ধ করা সব গল্প ছড়িয়ে। কত কিংবদন্তির জন্ম যে দেশে, উদ্ভাবনী চিন্তায় যে দেশ ক্রিকেটকে প্রতিনিত উপহার দিয়েছে নতুন নতুন চমক—তাদের একটা বিশ্বকাপ আসলেই পাওনা হয়ে গিয়েছিল। আজ লর্ডসে ইংল্যান্ডের হাতে শিরোপা তুলে দিয়ে ক্রিকেট যেন সেই দায় মোচনই করল। আর সেই শিরোপাও এল এক আইরিশের হাত ধরে! যে আইরিশদের সঙ্গে তাদের এত রেষারেষি, অবশেষে সেই আয়ারল্যান্ডে জন্ম নেওয়া মরগানের হাতে উঠল ইংল্যান্ডের প্রথম বিশ্বকাপ ট্রফি। একটা ফাঁক অবশ্য আছে। এর আগে ইংল্যান্ড টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ অবশ্য জিতেছিল, পল কলিংউডের নেতৃত্বে। কিন্তু খোদ আইসিসি সেটিকে বিশ্বকাপ বলে না। বলে ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টি। সেই ছোট শিরোপা দিয়ে বড় গর্ব কি করা যায়! অবশেষে গর্ব করার উপলক্ষ তারা পেল। ক্রিকেটের মহারাজার মুকুট পেল ক্রিকেটের মহারাজারা।


মতামত জানান

Your email address will not be published. Required fields are marked *

RSS Bangla Tribune

  • যে চরিত্র বদলে যায়, সেটাই চাই: কঙ্কনা সেন May 5, 2021
    বাণিজ্যিক নায়িকার স্লটে কখনোই নিজেকে ফিট করতে চাননি প্রতিভাবান অভিনেত্রী কঙ্কনা সেন শর্মা। তাই বলে যে সবসময় গুরুগম্ভীর আর্ট ফিল্মই বেছে নিয়েছেন, তা-ও নয়। বক্স অফিসে ব্লকবাস্টার সিনেমা উপহার দেওয়া এবং জাতীয় পুরস্কার পাওয়া এ অভিনেত্রী জানালেন, তিনি তথাকথিত সুবোধ ও নীতিতে অটল থাকে এমন লক্ষ্মী মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করতে চান না। ‘অভিনয় করার জন্য […]
  • ছেলেদের জন্য বিশ্বরঙের ঈদ আয়োজন May 5, 2021
    আসছে রোজার ঈদ, রোজার ঈদকে ঘিরে বেশ আগে থেকেই শুরু হয় ঈদ উদ্যাপনের সকল পরিকল্পনা ঈদ ফ্যাশন কেমন হবে তা অনেকটা নির্ভর করে ঋতু আর ট্রেন্ডের উপর। এবারের ঈদ হচ্ছে গ্রীষ্মের প্রচন্ড দাবদাহে। এমন আবহাওয়ার কারণে উৎসবে এখন গুরুত্ব পাচ্ছে ক্যাজুয়াল শার্ট। পোশাক ট্রেন্ডে পরিবর্তন এসেছে ডিজাইনে, কাটিংয়ে এবং প্যাটার্নে। ফ্যাশন সবসময় পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে […]
  • পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন নিয়ে যা বললেন বাংলাদেশের রাজনীতিকরা May 5, 2021
    পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। টানা তৃতীয়বারের মতো বাংলাদেশে সীমান্তবর্তী ভারতের অন্যতম এ রাজ্যে সরকার গঠন করলো মমতার দল। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বুধবার (৫ মে) শপথ নেন তিনি। পশ্চিমবঙ্গে মমতার দলের বিজয়কে গণতন্ত্রের বিজয় বলে মনে করছেন রাংলাদেশের রাজনীতিকরা। এ নির্বাচনে পশ্চিমবাংলার জনগণ সাম্প্রদায়িকতার অপচেষ্টাকে প্রতিহত করে অসাম্প্রদায়িক... বিস্তারিত
  • নাতনির সামনে চাকায় পিষ্ট দাদি May 5, 2021
    রাজধানীর বকশি বাজার মোড়, ফজলে রাব্বি হলের সামনে  কাবার্ডভ্যানের চাকায় পিষ্ট হয়ে  রিকশা আরোহী নাতনীর সামনে দাদি নিহত।  নাতনি আহত হয়েছেন । নিহত দাদির নাম নুর জাহান বেগম (৭০)। আহত নাতনি কলেজ ছাত্রীর নাম তাসমিন (২১)। বুধবার (৫ মে) রাত আনুমানিক সাড়ে নয় নয়টার দিকে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে ঢাকা […]
  • শহর ভীষণ অকৃতজ্ঞ May 5, 2021
    অপেক্ষাফেটে যাওয়া ফলের ভেতর যেটুকু গভীরতাআমাদের সখ্য সেটুকু অতিক্রম করবে না কখনোজীবনের তামাম আঁধার ঠেলে কেউ আরজাগাতে চাইবো না উৎসবিন্দুর নান্দনিক আখ্যান। বলা যায়, দু'চোখের শিশির পোড়াবে না আরদিগন্তপরিধির সুনীল জলরাশি, দেখা হবে নাআর কোনো ভুলজন্মের কুয়াশামাখা ভোর কিংবাবিপুল ও চকমকি সবুজের আঁচল ছোঁয়া বৃক্ষসভায়। আমরা কেবলি বিরহবর্ষিত আগুনের ডালি নিয়েশামুক-জন্মের অপেক্ষায় পেরিয়ে যাবো... বিস্তারিত
মাত্র পাওয়া: